জীবনবৃত্তান্ত কি সঠিকভাবে লিখছেন?

জীবনবৃত্তান্ত কি সঠিকভাবে লিখছেন? .

Advertisements

বাংলাদেশে নাস্তিকদের ইসলাম বিরোধিতার মূল কারন কি হতে পারে?

Collected From a mail

আচ্ছা বলুন তো মুসলিমরা না হয় জান্নাতের আশায় ধর্ম প্রচার করে। তাহলে নাস্তিকরা কিসের আশায়
 নাস্তিকতার প্রচার করে বেড়াচ্ছে। পড়াশুনা বাদ দিয়ে দৈনিক ৫-৬ ঘণ্টা সময় ইসলাম বিরোধী বড় বড়
 পোষ্ট দেয়ার কারন কি?? ব্যপারতা মনস্তাত্ত্বিক।
 নিজের নাস্তিকতার উপরেও নাস্তিকদের পরিপূর্ণ ইমান নাই। তারা প্রতি মুহূর্তে এটাই যাচাই করতে চায় কত সংখ্যক মানুষ তাদের সাথে একমত পোষণ করে। কারন সঙ্খ্যালঘু থাকাটাকে কেউ পছন্দ করবে না । যদি মানুষ দলে দলে নাস্তিকতাকে গ্রহন করে তাহলে বুঝতে হবে নাস্তিকতার পেছনে যুক্তিগুলো খুবই শক্ত। আর যদি মানুষ দলে দলে ইসলামের দিকে আসে তাহলে আরও বেশী করে ইসলামের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাতে হবে।
 মুলত শিক্ষিত যুবক শ্রেণীর মাঝে ইসলামের ব্যপক গ্রহণযোগ্যতা অনেক নাস্তিকের মনেই প্রশ্নের
 জন্ম দেয়। আমি ভুল পথে চলছি নাতো??????? নাস্তিকদের মধ্যে যারা কট্টর তারা এই কারনেই
 নিজেদের সময়ের অবমূল্যায়ন করে কেবল মাত্র একটি ধর্মের বিরুদ্ধে ব্যপক প্রচারনা চালাবে যাতে তাঁর সমসাময়িক নাস্তিকরা মানসিকভাবে ভেঙে না পরে।
 বস্তুত সত্য কখনও মিথ্যা দিয়ে প্রতিষ্ঠিত করা যায় না। পর্ণ সাইটের খরিদ্দার থেকে মানবতাবাদী লিখক
 হওয়া যায় না। ইসলাম যখন আবির্ভাব হয় তখন পৃথিবীতে অনেক ধর্ম ছিল। এই সবগুলো ধর্মের
 বিরুদ্ধে আজেবাজে কথা বলে রাসুল যদি ইসলাম প্রচারে নামতেন তাহলে তিনি তাঁর আসে পাশে আবু
 বকর, আলি, বা উমরের মত জ্ঞানী ব্যক্তিদের বন্ধু হিসেবে পেতেন না। উনার সারা জীবন খরচ হত কেবল অন্যান্য ধর্মের বিরুদ্ধে কথা বলতে বলতে!!!!!!!! তাতে কেউ কেউ হয়ত মেনে নিত অন্য ধর্মের
 অসারতা কিন্তু ইসলামের বাণী কি, এর মধ্যে কিকি আছে সেটা বলার সময় রাসুল (সঃ) পেতেন না।

 হাতি কখনও পিপিলিকার সাথে যুদ্ধ করে না। হাতি তাঁর নিজ ভঙ্গিমায় হেঁটে যায়। পিপিলিকা তাঁর
 পায়ের নিচে চাপা পরে। সেটা হাতিও জানতে পারে না, তাঁর জানার প্রয়োজন পরে না। ইসলাম কোন ধর্মের সাথে যুদ্ধে যায় নাই। বরং ইসলাম আসায় অন্য ধর্ম হয় বিলুপ্ত হয়ে গেছে নতুবা পৃথিবীর
 বুকে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারিয়েছে। আজ নাস্তিকদের মুখে শুধু শুনতে পারি অমুক ধর্মের এটা ভাল না, তমুক ধর্মের ওটা ভাল না। কিন্তু নাস্তিকতা আসলে কি বলতে চায়, তাদের আদর্শ কি, তাদের দৃষ্টিতে মানুষের কিভাবে জীবন যাপন করা উচিৎ মোটকথা নাস্তিকদের জীবনদর্শন কি সে ব্যপারে নাস্তিকদের কেউ নুন্যতম কিছু জানেন বলে মনে হয় না। বিজ্ঞান মানসিকতার নাস্তিকরা চাইলেই মাইক্রোসফট, গুগুল, বা ফেসবুকের মত বড় প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতে পারত। সেটা না করে মানবতার কল্যানে তারা আজ ইসলামের বিরোধিতার পেছনে জীবনের মুল্যবান নষ্ট করছে। কিন্তু নাস্তিকতা কিভাবে ধর্মকে প্রতিস্থাপন করতে পারবে সেই ব্যপারে একটু আলোকপাত করতে তারা বেমালুম ভুলে যাচ্ছে বার বার।